আশ্চর্য প্রেমিক

Hasikhushi Snape
প্রোফেসর সেভেরাস স্নেইপ

একটা লোক বেঁচে থাকতে সব্বার স্বার্থেই স্বেচ্ছায় সব্বার সামনে নিজেকে ঘেন্নার চোখে দেখতে অভস্ত্য করে তুলেছিলো। কারন লোকটা ভালোবাসতো।

একটা লোক সব্বার স্বার্থে যেচে মুখ বুজে তার জীবনের সবথেকে দামী জিনিসটাকে যে কেড়ে নিয়েছে তারই খিদমতগার হয়ে থাকতো। কারন লোকটা ভালোবাসতো।

একটা লোক যাকে কোনোদিন কেউ ভালোবাসার চোখে দেখেনি কিন্তু সে তাদের হয়েই লড়তে গিয়ে মর্মান্তিক ভাবে মরলো। কারন লোকটা ভালোবাসতো।

একটা লোক যে বাধ্য হলো নিজের সবচাইতে প্রিয় মানুষটাকে নিজের হাতে মেরে ফেলতে। কারন লোকটা ভালোবাসতো।

একটা লোক যে নিজেকে যেচে সব্বার কাছে সন্দেহের পাত্র করে রেখেছিলো। কারন লোকটা ভালোবাসতো।

একটা লোক যে বিশ্বাস করতে ও করাতে চাইতো সে পাথর। কারন লোকটা ভালোবাসতো।

একটা লোক যার মত সাহসী সেই দুনিয়ায় আর হাতে গুনে দুটো ছিলো, সেই লোকটাই কখনও বলতেই পারলোনা ভালোবাসি। কারন লোকটা ভালোবাসতো।

শুধু একজোড়া চোখের ওপর ভরসা করে, শুধু কৈশরের কয়েকটা মুহুর্ত সম্বল করে, শুধু একটা আশায়, একটা বিশ্বাসে, একটা ভালোলাগায়…লোকটা ভালোবাসতো।

আশা করা যাচ্ছে আজ জেমন্স পটার বেরসিকের মত ব্যাবহার করবেন না….

প্রোফেসর সেভেরাস স্নেইপ, এক আশ্চর্য প্রেমিকের গল্প


বৃটিশ কিংবদন্তী অ্যালান রিকম্যান চলে গেলেন ৬৯ বছর বয়সে – ক্যান্সারের সঙ্গে লড়তে না পেরে। আমি লন্ডনে থিয়েটার দেখিনি – দেখেছি শুধু প্রোফেসর স্নেইপ কে। সেই মানুষটাকে নিয়ে কিছু কথা যে না বললেই নয়।


Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *