উন্নত শির

ফোন যে কখনো হাল ছেড়ে দেবে এটা ভাবা যায় না বোধয়। অন্তত রাহুল কখনই সেটা ভাবে নি।

তাও রাস্তার মাঝখানে। তবে ভাগ্যিস হাল ছেড়েছিল। মুখটা তুলেই রাহুল বুঝেছিল যে আরেকটু হলেই ও চলন্ত বাসের তলায় চাপা পড়তো।

হ্যাপি মাদারস ডে

জয় মাতা দি

রোজ শোনা যায় এই চিৎকার, কাটরার পথে মাতৃ-দর্শন করতে যাবার সময়।
তবু, যেদিন আমি যাই, একমাত্র সেই দিন আমার কাছে বিশেষ।
মা কে রোজ বলবো ভাবি, তুমি কিকরে এমন করে করো, যাই করো না কেন।
কিকরে তোমার হাতের রান্নার স্বাদ চিরকাল অন্যরকম লাগে, কেন যতই তোমায়ে ডাকি, মনে হয়ে আরেকবার ডাকি।
সত্যি বলছি, দুর্গাপূজার অঞ্জলি দেবার সময় তোমার মুখটাই খুঁজি।
বাবা পিছনে শিব সেজে থাকে, কিন্তু আমি জানি, বাবাও ঠাকুমার জন্যে বেশি ভাবতো।
আমি তো বাবারই ছেলে, তা আমি আমার মা কে নিয়ে কেন ভাববো না বোলো ? read more

ছিন্নবীণা ৫

tay high!

উফ! কটা দিন টানা গাঁজা সিগারেট খেয়ে কাটানো যাবে, জাস্ট ভাবা যাচ্ছে না!! সাধে বলে pujo spirit ?

না না, আমি না, শিব হয়ত প্রতিবছর এসময় এমনটাই ভাবেন!

পাড়ায়ে পাড়ায়ে প্যান্ডেল কর্তার এখন ঘুম উড়ে যাবার জোগাড়। শারদ সম্মানগুলো তো আর অন্যদের নিতে দেওয়া যায়ে না, কি বল? read more

ছিন্নবীণা ৪

আগের পর্ব

বাজনাদার-পয়সাওলা-ব্যাচেলর আর সরস্বতী-লক্ষ্মী-কাত্তিক কথা

এক কালে বীণা বাজাতেন।

এখন iphone অ্যাপ download করেন।

এক কালে শ্বেত-বরণ বলেই লোকে চিনতো।

এখন তাকে Fair and Lovely-র দেবী বলেই হয়তো চিনছি।

এক কালে হাতেখড়ি, আর বইপত্র রেখে এবারের পরীক্ষাটা পাশ করা নিয়ে ভাবতাম, এখন পাশ দিয়ে হেঁটে যাওয়া হলুদ শাড়ি পরা মেয়েটা সেই পাশ ফেলটা তুচ্ছ করে দিয়েছে। read more

ছিন্নবীণা ৩

ELEPHANTASYSING!

ছবি এঁকেছেনঃ পার্থ মুখার্জী
ছবি এঁকেছেনঃ পার্থ মুখার্জী

নাহ!

হাতিকে নিয়ে fantasy দেখছিলুম কিনা ভেবে নিলুম।

চোখ কচলে দেখলুম, না fantasy নয়, জলজ্যান্ত সত্য। এ গণেশ ঠাকুর পাতলুন শার্ট গলিয়ে motorbike-এই এসেছে। স্বপ্নে নয় হে! সত্যি।

তা জনগণের ঈশ্বর modern হয়ে উঠলে আমরাই বা কী এমন দোষ করলুম। Solar-cook.. sorry.. রবি ঠাকুর ছেড়ে নাহয় Honey সিংহ কেই ধরলুম। মুডটা বজায়ে থাকলেই হল, তাই না? রবির দোলে আমরা দোল খেতাম, এখন দুলুক বিশ্ব-কোমর ! read more

ছিন্নবীণা ২

আগের পর্ব

যারা কাজ পরে করে, তারা কর-পরেট !

কী করবো বল, এই পোড়া IT Sector-এ রাত ৮-টার আগে তো কাজের চাপ পড়তেই দেখিনা।

আর এই খামকা বাজে কাজের উটকো চাপ বাঁচাতে দেখি, আশেপাশে পালাই পালাই রব। কেউ উচ্চশিক্ষা, তো কেউ ব্যাবসা। যারা উচ্চশিক্ষা, তাদের মধ্যে কেউ আবার উচ্চশিক্ষা করে ব্যাবসা। আর তার সাথে মাথা উঁচু flat, আর গাড়ি, আর না জানি কী। read more

ছিন্নবীণা ১

দুগগা নামে শুরু!


পুজো এসে গেল !

আর আমি জনৈক বাঙালি, অফিস কাছারি করেই ব্যাস্ত। পাড়ায় Theme পুজো হয় না, তাই পুজোর সপ্তাহখানেক আগের থেকে ছাড়া বোঝা দায়ে যে পুজো আসছে।

মা কে জিগালাম, “কী নেবে পুজোয়?”

মুখ ভেটকিয়ে বল্ল “যা দিবি……।” read more