কিভাবে প্রজেক্ট ম্যানেজমেন্ট করবেন না – ৪

জলহস্তীর মত সুরেলা কণ্ঠে প্রথম প্রশ্ন করলেন, ‘বাড়ি কোথায়?’ বললুম। তাতে চোখটা ওপরে তুলে বললেন, ‘স্টেশন থেকে কতদূর বাড়ি?’ ‘বেশিক্ষণ না – মিনিট পাঁচেক। গার্লস ইশকুলের কাছে।’ ‘গার্লস ইশকুলে কাছে বাড়ি হয়ে কোন সুবিধে হয়েছে?’ ঘাড় নাড়লাম, ‘না, হয়নি।’ সেদিন তো সবে শুরু। পরে কথাবার্তা শুনে ভালো করে চেনার পর বুঝেছি, ওনার মুখ মানেই জাঙ্গিয়া। খুললেই – যাক সে কথা।

কিভাবে প্রজেক্ট ম্যানেজমেন্ট করবেন না – ৩

ভদ্রমহিলা ডাকসাইটে সুন্দরীও ছিলেন। তখন ভয় পাব কি পাব না এই নিয়ে থতমত খাচ্ছি, এর মধ্যে টেস্ট স্ট্র্যাটেজি পুরো মাখনের মত নেমে গেল। সেদিন বুঝলাম, মোলায়েম ক্যাম্বেলও একটা নতুন প্রজাতি। দাবাং তো হল এই সেদিন, কিন্তু ‘থাপ্পড় সে ডর নেহি লাগতা, প্যার সে লাগতা হ্যায়’ – এই নিদেন উনি আমাকে দিয়ে গেছেন প্রায় এক দশক আগে।

ছিন্নবীণা ৩

ELEPHANTASYSING!

ছবি এঁকেছেনঃ পার্থ মুখার্জী
ছবি এঁকেছেনঃ পার্থ মুখার্জী

নাহ!

হাতিকে নিয়ে fantasy দেখছিলুম কিনা ভেবে নিলুম।

চোখ কচলে দেখলুম, না fantasy নয়, জলজ্যান্ত সত্য। এ গণেশ ঠাকুর পাতলুন শার্ট গলিয়ে motorbike-এই এসেছে। স্বপ্নে নয় হে! সত্যি।

তা জনগণের ঈশ্বর modern হয়ে উঠলে আমরাই বা কী এমন দোষ করলুম। Solar-cook.. sorry.. রবি ঠাকুর ছেড়ে নাহয় Honey সিংহ কেই ধরলুম। মুডটা বজায়ে থাকলেই হল, তাই না? রবির দোলে আমরা দোল খেতাম, এখন দুলুক বিশ্ব-কোমর ! read more

প্রবাসীর ডায়েরি ৩

মেলামেলি

নরম নীল আকাশ। তাতে কিছু মেঘ একে অপরের পিছু ধাওয়া করেছে। কেউবা ধীরে ধীরে নিজেকে বড় করে চলেছে। আবার কেউ তাদের আধো আধো হাত দিয়ে নরম নীল রংকে এক মনে আবিষ্কার করে চলেছে। এরই মধ্যে, রোদ কখনো চড়া গলায়, কখনো ফিসফিস করে সময় জানিয়ে চলেছে। read more

কিভাবে প্রজেক্ট ম্যানেজমেন্ট করবেন না – ২

আগের পর্ব

দ্বিতীয় পর্ব  – বোঝেনা,  সে বোঝে না

সত্যি বলতে কি প্রথম লেখাটার পরে যে বাড়িতে ঢিল পড়েনি বা অফিসে দু একটা চড় থাপ্পড় পড়েনি – এতে আমি একটু অবাকই হয়েছিলাম। শীল যে কিনা নিত্য মুগুর ভাঁজে – অটো-ওয়ালাকে প্যাঁদায়, সে কি আর এত বড় মস্করা সহ্য করতে পারে? আশ্চর্যের বিষয় এসবের কোনটাই হয়নি – উলটে এই লেখা বেরনোর পরের দিন যখন অফিসে পৌঁছেছি, ততক্ষণে দেখি রীতিমত হইচই পড়ে গেছে আর সেই ঠেলায় শীলও বন্ড নামে প্রায় বিখ্যাত হয়ে গেছে। যারা লুকিয়ে চুরিয়ে রিসেপশনিস্টকে দেখত, তারাও বিড়ম্বনায় পড়ে গেছে – পাছে আমি কখনও তাদের নিয়ে গল্প লিখে ফেলি। শীলের নানা রকম কীর্তিকলাপ আমার কানে আস্তে শুরু করেছে – যাতে অন্য কোনোদিকে না তাকিয়ে আমি দ্বিতীয় পর্বটাও ওকে নিয়েই লিখি। যেমন বন্ড নাকি জানে প্রজেক্টে কোন মেয়ের কোথায় ট্যাটু আছে, যার গার্ল-ফ্রেন্ড নেই, তার বন্ড আছে এইসব। তা বন্ড যতই কালটিভেট করার মত চরিত্র হোক না কেন, আমাদের তো লক্ষ্য হারালে চলবে না। আমরা কথা শুরু করেছি প্রজেক্ট ম্যানেজমেন্ট নিয়ে। সেই নিয়ে আজকে আমাদের দ্বিতীয় পর্ব। গোড়া থেকে আরম্ভ করা যাক। read more

ছিন্নবীণা ২

আগের পর্ব

যারা কাজ পরে করে, তারা কর-পরেট !

কী করবো বল, এই পোড়া IT Sector-এ রাত ৮-টার আগে তো কাজের চাপ পড়তেই দেখিনা।

আর এই খামকা বাজে কাজের উটকো চাপ বাঁচাতে দেখি, আশেপাশে পালাই পালাই রব। কেউ উচ্চশিক্ষা, তো কেউ ব্যাবসা। যারা উচ্চশিক্ষা, তাদের মধ্যে কেউ আবার উচ্চশিক্ষা করে ব্যাবসা। আর তার সাথে মাথা উঁচু flat, আর গাড়ি, আর না জানি কী। read more

ছিন্নবীণা ১

দুগগা নামে শুরু!


পুজো এসে গেল !

আর আমি জনৈক বাঙালি, অফিস কাছারি করেই ব্যাস্ত। পাড়ায় Theme পুজো হয় না, তাই পুজোর সপ্তাহখানেক আগের থেকে ছাড়া বোঝা দায়ে যে পুজো আসছে।

মা কে জিগালাম, “কী নেবে পুজোয়?”

মুখ ভেটকিয়ে বল্ল “যা দিবি……।” read more

প্রবাসীর ডায়েরি ২

Okolkata_OK_-_Dharabahik

 “স্যার, পাবলিক আমায় নেবে তো?”

একটা হাল্কা উন্মাদনা বোধ করছি। আমার লেখা জনৈক ব্লগে ছাপানো হচ্ছে। একটু একটু করে পাঠকের সংখ্যা বাড়ছে। সকাল বিকেল কড়া নজর রাখছি ফেসবুকে এবং ব্লগে কে লাইক করছে, কে কী কমেন্ট করছে তা জানার জন্য। মাঝে মধ্যে মনে হচ্ছে একটু বাড়াবাড়ি করে ফেলছি। তাও, নিজেকে থামাতে পারছি কই? read more

ছায়াছবির সঙ্গী – অ আ এবং ই ঈ (৭ )

আগের পর্ব

কোলকাতার চলচ্চিত্র জগতে, এর পরের পরিবর্তন যা এলো, তা হল আজকের ডিজিটাল ব্যবস্থা। সবটাই এক সাথে ডিজিটাল হয়ে যায়নি। ফিল্ম অর্থাৎ সেলুলয়েড চলে যেতে আরও কয়েক বছর সময় নিয়েছে। প্রথম ডিজিটাইজ্‌ড হয় এডিটিং এবং প্রায় সঙ্গে সঙ্গেই ডাবিংও। read more

নীরব দর্শক – ৩

পড়তে গিয়ে আপনাদের মনে হতে পারে অপ্রাসঙ্গিক, বা ধান ভানতে শিবের গীত তবে এই কথা গুলো একটু ভেবে দেখবেন।

ভারতের বিস্তীর্ণ অঞ্চলে বা বাংলাদেশেও একটা রেওয়াজ আছে, নতুন মানুষকে জিজ্ঞেস করার :- আপনার দেশ কোথায় ? ওড়িয়াতে জিজ্ঞেস করে :- ঘরঅ কৌঠি ? (এখানে ঘরঅ =দেশ)। তেলুগুতে – মি উরু অ্যাক্কাড়া? (মি = আপনার,উরু = দেশ, অ্যাক্কাড়া = কোথায়)। read more