সিনেমার কুইজ – ২

আশা করি আমার গত সপ্তাহের সিনে-ধাঁধাটা ভালো লেগেছে – যদিও খালি একটাই রেসপন্স দেখতে পাচ্ছি. এবার জবাব এর পালা –

পুরো প্রশ্ন টা পড়ে সব থেকে জরুরি ছিল কোনো অংশটার উত্তর সোজাসুজি পাওয়া যায়ে: একটু ‘গ’ এর অংশটা দেখা যাক – এক মহিলা যার ছবি অস্কার এর জন্যে এ মনোনীত হয়েছিল – ভারতীয়দের এই কীর্তি একজনেরই  : মীরা নায়ার, ছবির নাম সালাম বম্বে;তাহলে ‘গ’ – মীরা নায়ার।
এবার যদি আমি ‘খ’ এর খোঁজে যাই তাহলে দেখা যাবে ভারতীয় ছবি অস্কার এ মনোনীত  হয়ে ৩ বার – পঞ্চাশএর  দশক এ “মাদার ইন্ডিয়া” , ৮৮তে  “সালাম বম্বে” এবং ২০০১ এ “লাগান”. মাদার ইন্ডিয়া র পরিচালক মেহেবুব খান আর মীরা নায়ার এর একসাথে অ্যাসিস্ট্যান্ট হওয়াটা কিছুটা অবাস্তব কারণ দুই পরিচালক এর কাজের সময়কাল ভিন্ন – সেখানে মীরা নায়ার এবং আশুতোষ গাওরিকার (লাগান এর পরিচালক) সমসাময়িক. সেই সুত্রে আমরা ধরে নিতে পারি যে ‘খ’ : আশুতোষ গাওরিকার।
এরপর যদি দেখা যায়ে কোন পরিচালক আশুতোষ গাওরিকার এবং মীরা নায়ার এর অ্যাসিস্ট্যান্ট ছিলেন তাহলে তার উত্তর একটাই – কিরণ রাও, তাই ‘ক’ – কিরণ রাও (আমির খান এর স্ত্রী।
এবার ‘ক’ ধরে সোজাসুজি যেই যেই অংশে আমরা যেতে পারি – তাহলো ‘ঘ’ : যেই ছবি তে ‘ক’ অভিনয় করেন এবং ‘জ’ : যেই ব্যক্তি ‘ক’ এর কাজিন।
ব্যাপারটা খুবই সহজ হয়ে যায় কারণ কিরণ রাও এর একমাত্র অভিনয় (খুবই ছোট চরিত্রে) “দিল চাহতা হায়” এবং কিরণ এর একমাত্র আত্মীয় যে ফিল্ম জগতে আছেন তিনি হলেন অদিতি রাও হায়দারী।
সেই সুত্রে ‘ঘ’ – দিল চাহতা হায়
‘জ’  – অদিতি রাও হায়দারী।
বাকি রইলো ‘চ’ আর ‘ছ’. ‘চ’ এর পরিচয় তিনি ‘ঘ’ অর্থাত “দিল চাহতা হায়” এর পরিচালক – তাই তিনি ফারহান আখতার
‘ছ’ হলো ‘চ’ আর ‘জ’ এর অভিনীত ছবি – অর্থাৎ ফারহান আখতার এবং অদিতি রাও হায়দারী র ছবি – তারা একটি ছবিই আজ অবধি একসাথে করেছেন – “ওয়াজির” ।
‘চ’ – ফারহান আখতার
‘ছ’ – ওয়াজির read more

ছায়া ছবির সঙ্গী (৯)

বিভূতিভূষণ মুখোপাধ্যায়’এর যে গল্প থেকে ‘বিবাহ অভিযান’ সিরিয়ালটি তৈরী হয়, তার নাম ‘গনশার বিয়ে’। এই গল্প থেকে বিখ্যাত চলচ্চিত্র ‘বর যাত্রী’ হয়ে গেছে অনেকদিন। সেই চলচ্ছবি থেকেই উঠে এসেছিলেন পরবর্তী সময়ের নামী অভিনেতা কালী ব্যানার্জী। শোনা যায়, ওঁনার কথা আটকে যাওয়ার যে ঝোঁক, সেটা ওই গনশার চরিত্র করার সময় থেকেই তার সঙ্গে থেকে যায়। কারণ গনশা ছিল তোতলা।

ছায়াছবির সঙ্গী – অ আ এবং ই ঈ (৮)

আগের পর্ব

কারিগরি কচকচানি অনেক হ’ল। আর ওসব আলাদা করে লিখব না। যখন যেমনভাবে সামনে আসবে, আলোচনা করা যাবে তখন। বরং কাজের কথা বলতে বলতে কাজের বাইরের কথা কথা কিছু বলি। কাজের বাইরের বলে উল্লেখ করলাম বটে কিন্তু এই অকাজ-গুলো আমাদের কাজের সঙ্গে এমনভাবে জড়িয়ে আছে যে আলাদা করাই মুশকিল। সত্যি কথা বলতে, এসব মুহূর্তই আমাদের কষ্ট ভুলিয়ে আনন্দময় করে রেখেছে আমাদের কর্মজীবন এবং তা কোনো কোনো সময় যথেষ্ঠ রঙীন। read more

বাজিরাও মাস্তানি

প্রথমেই বলে রাখি পেশোয়া প্রথম বাজিরাও এবং তাঁর দ্বিতীয় স্ত্রী মাস্তানির গল্প নিয়ে বলিউডে সিনেমা এটাই প্রথম নয়, ১৯৫৫ সালে প্রথম – ধীরুভাই দেশাই পরিচালিত ‘মাস্তানি’ নামক একটা বিস্মৃতপ্রায় সিনেমা, তেমন সাড়া জাগাতে পারেনি তখন। এবারেও তেমন সাড়া ফেলতে পারত কিনা সন্দেহ আছে কারণ তদানীন্তন মারাঠা অভ্যুত্থান-সংক্রান্ত ইতিহাস নিয়ে আজকের বেশিরভাগ ভারতবাসীই উদাসীন, মাধ্যমিক স্তরের ইতিহাস পাঠ্যক্রম শেষ হওয়ার সাথে সাথে যার প্রয়োজন ফুরোয় কিন্তু ধন্যবাদ সঞ্জয় লীলা বনশালীকে, অল্পশ্রুত কাহিনীকে বিরল দৃশ্যরূপ দেওয়ার চ্যালেঞ্জটা সুন্দর করে পরিবেশন করার জন্যে। ইতিহাস নিয়ে আমার বরাবরই আগ্রহ, কোথাও ঘুরতে গেলে ঐতিহাসিক গুরুত্বপূর্ণ জায়গা আমার প্রথম পছন্দ। তাই সিনেমার অপ্রয়োজনীয় দৈর্ঘ্য নিয়ে অনেক ফিল্ম সমালোচনায় পড়লেও আমার ব্যক্তিগতভাবে মনে হচ্ছিল ‘ইস্, আরেকটু সময় চললে পারত।’ read more

বাকরহিত

বাংলা ছবি বানানো খুব সহজ কাজ। এমনকি পৃথিবীর সহজতম কাজ বললেও ভুল হবে না।কেন? ধরুন আপনি একজন পরিচালক। উঁহু…ভুল বললাম।একজন বাংলা ছবির পরিচালক।এখন ধরে নিন আপনার হাতে প্রযোজকের মানিব্যাগ আছে।এন্তার চিট ফান্ড বা লেকমলজাত টাকা। আপনি কি করবেন?
১। প্রথমেই একজন বলিউড ফেরত নায়িকার ফাঁকা ডেট গুলো বুক করে নিন।
২। তারপর একজন ভালো ডি ও পি -র সাথে কথা বলে নিন।(সৌমিক হালদার হলে বেটার)।
৩। তারপর টি ভি চ্যানেলে একটা স্লট বুক করে নিন। ভালো ভালো কিছু টার্ম মুখস্থ করে যাবেন। (সংজ্ঞা -ও পড়বেন, কারন কিছু কিছু সাংবাদিক ঠ্যাঁটা হয়।খালি কোশ্চেন করে) যেমন সুররিয়ালিজম, দাদাইজম, কিউবিজম, নিও নোয়ার, স্লো সিনেমা, পোয়েটিক্স, হাংরিয়ালিস্ট আন্দোলন, হ্যানেকে,বার্গম্যান,ইরানিয়ান ডায়াস্পোরা ইত্যাদি। ইন্টার্ভিউ তে গিয়ে বলুন- আপনি এবার একটু “অন্যরকম” কাজ করতে ছান।এই “অন্যরকম” শব্দ টা আবার অনেক কিছু বোঝায়।মল্লিকা শেরওয়াৎ -ও অন্যরকম।আবার স্বদেশ সেনের কবিতা-ও অন্যরকম।
৪।যাকগে, এবার আপনি ছবিটা বানানো শুরু করে দেবেন। বলিউড ফেরতা নায়িকা কে নিয়ে বেশ কয়েকটা “অন্যরকম” শট নিন।মানে আপনি এতদিন টরেন্ট আর উইকিপিডিয়া ঘেঁটে যা যা শিখেছেন সেগুল কয়েকটা পারমুটেশন কম্বিনেশন করে দিন। বেলা টারের তুরিন হর্সের সাথে মাইকেল মানের চোখা সংলাপ—মেলাবেন আপনি মেলাবেন।
** ঋত্বিক বা শাশ্বত–এদের যেকোনো একজন কে নেবেন।এদের এখন পাবলিক খাচ্ছে ভালো।
৫।কিছু বোকা বোকা রমকম থেকে বামনদেব চক্রবর্তী মার্কা বাংলা অনুবাদ করা সংলাপ দেবেন। প্রেম যে আসলে দুনিয়ার সব সেরা ব্যাপার, অনেকটা পবিত্র, সাদা ভ্যানিলা আইসক্রিম বা ময়দানের বুড়ির চুলের মতো; আর রাজনীতি যে অতি বস্তাপচা, নোংরা খ্যাংরাঝাঁটা মার্কা জিনিস—এটা ভালো করে বোঝাবেন।তাহলে আনন্দবাজার ভালো নম্বর দেবে।
৬। আবার টিভি চ্যানেল।এবারে বলে আসবেন, এই ছবি টা করতে গিয়ে মানুষ হিসেবে আপনি এতোটাই পরিবর্তিত হয়েছেন, যে আর কোনোদিন আপনার আগের ছবি গুলোর মতো পাপিষ্ঠ ছবি বানাবেন না।তাই শুটিং শেষ করেই আপনি সিসিলি তে একটা ছুটি কাটাতে যাচ্ছেন।
৭। ছবির শেষ টুকু ভাবাই আসল। বেশি চাপ নেবেন না। নেট ঘেঁটে কিছু না কিছু একটা পেয়ে যাবেন। আই এম ডি বি আছে না?আর মাথা খাটাতে চাইলে ৩ এর পয়েন্ট টা আবার একটু ঝালিয়ে নেবেন।
৮। মার্কেটিং, মশাই মার্কেটিং। ওটাই আসল। রেডিও, নিউজ চ্যানেল, রেস্টুরেন্ট, রকেট বড়ি,শপিং মল, আই পি এল–সবার সাথে কোলাবরেশন করে ফেলুন। বাকিটা ফ্যাল কড়ি, মাখ তেল। read more

ডিটেকটিভ ব্যোমকেশ

ব্যোমকেশ দেখলাম – নতুন ব্যোমকেশ। শুধু বয়সেই নতুন যে তা নয়, অভিজ্ঞতায়, চলনে বলনে বাঙালির কাছে এ এক নতুন ব্যোমকেশই বটে। হ্যাঁ, দিবাকর ব্যানার্জীর নতুন সিনেমার কথাই বলছি। যশ রাজের ব্যানারে এই নতুন সিনেমা – শুধু সিনেমাই, পাঠক হিসেবে তাকে শরদিন্দুর সাথে গুলিয়ে ফেললে একেবারেই চলবে না কিন্তু। সাহিত্য-ধর্মী কাহিনী থেকে সিনেমার পর্দায় উত্তরণের কিছু পদক্ষেপ আছে, দর্শক হিসবে পরিচালকের সেই স্বাধীনতাটুকু মন থেকে মেনে নিতে পারলে আজকের ব্যোমকেশ বেশ ঝকঝকে সিনেমাই বলতে হবে। শরদিন্দুর ব্যোমকেশ সত্যান্বেষী – আর দিবাকরের ব্যোমকেশ ডিটেকটিভ। পরিচালক কিন্তু প্রত্যাশা পূরনের রাস্তায় হাঁটেননি একেবারে গোড়া থেকেই। read more

বাদশাহী সার্কাস

যখন দেখতে শুরু করেছিলাম তখনই বুকের কাছে হাত জড়ো করে চোখ বুজে প্রার্থনা করছিলাম, হে ভগবান, ৩১শে ডিসেম্বরের রাতটাকে তুমি নষ্ট হতে দিও না, প্লিজ প্লিজ প্লিজ ! কিন্তু ঐ সেকেন্ড প্লিজটা বলার সময় কানের সামনে একটা পোঁ পোঁ করে আওয়াজ শুনে বাঁ চোখটা ঐ যে আধা মিলিমিটার ফাঁক করেছিলাম, ব্যাস ! ওইটুকুর জন্য ভগবান আমার আপীল রিজেক্ট করে দিল ! নিষ্ঠুর হে ! এই করনি ভাল ! read more

ছায়াছবির সঙ্গী – অ আ এবং ই ঈ (৬)

আগের পর্ব

বাংলা চলচ্ছবির সঙ্গে আমার চলন এমন একটা সময়, যখন তার কারিগরী পরিবর্তন বড় দ্রুত থেকে দ্রুততর হচ্ছে। প্রতিদিন নতুন নতুন কর্ম পদ্ধতি, নতুন নতুন কারিগরী বিদ্যা এসে পড়ছে এই চলচ্ছবি নির্মাণের আঙিনায়। read more